গর্ভাবস্থার ৪র্থ সপ্তাহ । সপ্তাহ অনুযায়ী

গর্ভাবস্থার ৪র্থ সপ্তাহ

গর্ভাবস্থার প্রতিটি সপ্তাহ সম্পর্কে মা কে জানাতে ও বিভিন্ন তথ্য দিতে আমরা চেস্টা করে যাচ্ছি।
আপনি গর্ভাবস্থার ৪র্থ সপ্তাহ এ বুঝতে পারবেন আপনি মা হতে যাচ্ছেন।
বেশির ভাগ মা ই বুঝতে পারেন তাদের এই পরিবর্তন।।। তারপরও আপনাদের ধারনা দিতে Pawkythings.com এর পক্ষ থেকে কিছু সুনির্দিষ্ট আলোচনা করা হল। গর্ভাবস্থার ৪র্থ সপ্তাহ মানে আপনি প্রথম ট্রাইমিস্টার এ আছেন।

ভ্রূনের বয়স ও অবস্থানঃ
গর্ভধারণের চতুর্থ সপ্তাহে খুব দ্রুত ভ্রূনের বৃদ্ধি হতে থাকে। এই সপ্তাহে এসে ভ্রূন একটি পপি বীজ বা আপেল বীজ এর মত থাকে। কেউ বলে পোস্ত দানার মত থাকে। এই ভ্রূন এর দুইটি স্তর থাকে।

  • এপিব্লাস্ট
  • হাইপোব্লাস্ট
    এই স্তর থেকে শরীরের অংগ প্রত্যংগ গঠন হওয়া শুরু হয়ে যায়।

ত্রিস্তর বিশিষ্ট প্রাণীদের ভ্রূণীয় তিনটি স্তরের মধ্যবর্তী স্তরকে মেসোডার্ম (Mesoderm) বলে। অন্য দুটি স্তরের মধ্যে বাহিরেরটি এক্টোডার্ম (Ectoderm) এবং ভেতরেরটি এন্ডোডার্ম (Endoderm)

👉 এক্টোডার্ম থেকে শিশুর বহিঃত্বক এবং স্নায়ুতন্ত্র, বাচ্চার মস্তিষ্ক, নখ, দাঁতের এনামেল, চোখের মণি ও চামড়া গঠন হবে।
👉 মেসোডার্ম ভ্রূনের কঙ্কাল, পেশী এবং হৃৎপিণ্ড গঠনে সহায়তা করবে এবং
👉 এন্ডোডার্ম ফুসফুস, পাকস্থলী, ব্লাডার এবং অন্যান্য অঙ্গ গঠনে সাহায্য করবে ।

চতুর্থ সপ্তাহে নিষিক্ত ডিম্বানুটি জরায়ুতে স্থাপিত হওয়ার পর থেকে দ্রুত কোষ বিভাজন চলতে থাকে। এই সপ্তাহে মায়ের গর্ভে গর্ভথলে/তরলপূর্ণ ব্যাগ (Amniotic Sac) গঠিত হয়। এই থলে পানিতে ভর্তি থাকে, যা বাচ্চাকে পরবর্তী নয় মাস বাইরের আঘাত থেকে সুরক্ষা দেবে। গর্ভথলির ভিতর ভ্রূণ বা ইয়োক স্যাক (Yolk Sac) রক্ত এবং পুষ্টির যোগান দেয়। পরবর্তীতে ভ্রূনকে প্ল্যাসেন্টা (placenta) পুষ্টি ও অক্সিজেন সরবরাহের কাজটি করে থাকবে।

★প্লাসেন্টা হচ্ছে গর্ভকালীন সময় জরায়ুর দেয়ালের সাথে ফেটাসের সংযোজক নালী★

গর্ভাবস্থার চতুর্থ সপ্তাহে মা এর লক্ষনঃ
এই সপ্তাহে মা কিছু লক্ষনে মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যাবেন গর্ভধারণ এর লক্ষন। এই সময়ে মা এর কিছু উপসর্গ নিচে আলোচনা করা হলঃ

  • বমি ভাব বা মর্নিং সিকনেস গর্ভাবস্থায় সাধারণ সমস্যা। কারো গর্ভাবস্থা শুরু থেকে শুরু করে শেষ মাস পর্যন্ত বমি হতে পারে।।
  • ক্লান্তি ও ঘুম ঘুম ভাব হতে পারে। প্রেগ্ন্যাসি হরমোনের উৎপাদনের জন্য এমনটা হয়।
  • স্ফীত ও নরম অথবা ভারি বা স্তনের পরিবর্তন হওয়া অন্যতম লক্ষন।
  • ব্লাস্টোসিস এর ইমপ্লান্টেশন এর জন্য স্পটিং বা রক্তক্ষরন হতে পারে।
  • পেটে হালকা ব্যাথা অনুভব করতে পারেন। সচেতন থাকতে হবে কেননা অতিরিক্ত ব্যথা একটোপিক প্রেগ্ন্যাসির এর লক্ষন হতে পারে।
  • মুড সুইং অর্থাৎ মেজাজ খিটমিট হতে পারে।


গর্ভবতী মায়ের করনীয়ঃ

গর্ভাবস্থায় মায়েদের উচিত কিছু ব্যবস্থা মেনে চলা উচিত।। 

  • Pre natal vitamin বা প্রয়োজনীয় মাল্টিভিটামিন নেয়া
  • ভিটামিন ডি অবশ্যই নেয়া শুরু করা উচিত
  • ফলিক এসিড গ্রহন করা (বিভিন্ন নিউরাল টিউব ডিফেক্ট, মস্তিষ্কের গঠন, স্পাইনাল কর্ড এর ত্রুটি দূরীকরণে সাহায্য করে।
  • জাঙ্ক ফুড বা অস্বাস্থ্যকর খাবার বাদ দিন
  • ধূমপান, মদ্যপান বা ড্রাগ ব্যবহার বন্ধ করুন ।
  • ক্যাফিন/কফি / অতিরিক্ত চা পান ছাড়ুন ।
  • ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন এবং পূর্বের ন্যায় যে কোন সামান্য অসুস্থতায় কোনো ধরনের ওষুধ গ্রহণ এড়িয়ে চলুন ।
  • বিশ্রাম নিন।

এই সপ্তাহে আপনার জন্য লক্ষনীয় বিষয় হলোঃ

  • শরীরের পরিবর্তন এর দিকে লক্ষ্য রাখা
  • ভারি কাজ এড়িয়ে যাওয়া
  • অতি গরম বা পানির কাজ বেশি না করা
  • অতিরিক্ত কাজ এর চাপ না নেওয়া


গর্ভাস্থার চতুর্থ সপ্তাহে মা এর  জন্য টিপসঃ

এই সপ্তাহে অনেক মা নিশ্চিত হয়ে যান সে গর্ভবতী।।। তাই বাসায় নিশ্চিত হতে মা প্রেগন্যান্সি কিট কিনে পরিক্ষা করতে পারেন। আপনি পজেটিভ রেসাল্ট পেলে ও আপনার ডঃ এর শরনাপন্ন হওয়া উচিত।  সকালের প্রথম মূত্র দিয়ে এই পরিক্ষা করলে সঠিক ফলাফল পাওয়া যায়। কেননা সকালের মূত্রে HGC  এর ঘনত্বের পরিমান বেশি থাকে। HCG- Human Chorionic Gonadotropin অনেক মা এর মাসিক অনিয়মিত তাদের জন্য একটু কস্টকর নিশ্চিত হওয়া।

বাবাদের জন্য পরামর্শঃ
গর্ভধারণের এই সময়টা একজন মায়ের জন্য অনেক আনন্দের এবং গুরুত্বপূর্ন। আপনার স্ত্রী যেমন মা হচ্ছে আপনি ও বাবা হচ্ছেন। তাই আপনার স্ত্রীর প্রতি খেয়াল রাখুন। তাকে শারীরিক মানসিক পরিবর্তনগুলোর সাথে মানিয়ে নিতে সাহায্য করুন। মুড সুইং এর সময়টাতে ধৈর্য্য ধরে অতিক্রম করুন।গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী মা এর জন্য ধাপে ধাপে আমরা যথেষ্ট নতুন নতুন তথ্য দেয়ার চেষ্টা করছি।।। ভাল থাকলে অন্য মা এর সাথে শেয়ার করবেন। 

আরও পড়ুনঃ
গর্ভাবতী মা এর অধিক গরম লাগার কারন ও করনীয়

গর্ভবতী ও দুগ্ধদানকারী মা এর রোজায় করনীয়

গর্ভধারণে বিলম্বিত? কোন ভুল করছেন না তো?

গর্ভকালীন ডায়বেটিস এ মা এর করণীয়

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে করনীয়

সম্পর্কিতপোস্ট

সম্পর্কিত পোস্ট

মন্তব্য করুন বা প্রশ্ন করুন ?

অনুসরণ করুন