গর্ভধারণ এর লক্ষণ

গর্ভধারণ-এর-লক্ষণ

আর্টিকেলটিতে যা থাকছে -

গর্ভধারণ করা একজন মায়ের জন্য অনেক সুখকর সংবাদ।। আর মা যদি গর্ভধারণ এর জন্য অপেক্ষা করে থাকেন তবে তা যেন এক সুখকর পাওয়া। তাই একজন মা এর জন্য গর্ভধারণ এর লক্ষণ জানা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

আসুন জেনে নেই কি কি লক্ষণ দেখলে বুঝতে পারবেন আপনি গর্ভধারন করেছেন কিনা।।

গর্ভধারণ এর প্রথম সপ্তাহের লক্ষণঃ

গর্ভধারণ এর লক্ষণ গুলো দেখে বুঝে নিতে পারেন আপনি গর্ভধারন করেছেন কিনা।

  • বমিঃ পিরিয়ড মিস হলে বা পিরিয়ডের ডেট আসার আগে আপনার বমি ভাব হলে বুঝে নিতে পারেন এটি প্রাথমিক গর্ভধারণ এর  লক্ষণ। National Collaborating Centre for Women’s and Children’s Health এর মতে ৮০-৮৫% নারীদের বমি ভাব হতে পারে আর ৫২% নারীদের বমি হতে পারে।
  • সার্ভিকাল মিউকাসের পরিবর্তনঃ সার্ভিকাল মিউকাসের বৃদ্ধি গর্ভাবস্থার একটি প্রাথমিক লক্ষণ। গর্ভধারণ হয়ে গেলে সার্ভিক্যাল মিউকাস ঘন হয়ে থাকে। আপনার পিরিয়ড মিস না হওয়া পর্যন্ত এই রকমই থাকবে।এছাড়া আপনি প্রস্রাব করার সময় চুলকানি এবং ব্যাথাও অনুভব করতে পারেন।
  • শরীর এর তাপমাত্রা বৃদ্ধিঃ গর্ভধারণ হয়ে থাকলে আপনার অতিরিক্ত গরম লাগবে। শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়া গর্ভধারণ করার অন্যতম লক্ষণ। প্রজেস্টোরন ও এস্ট্রোজেন এর উৎপাদনের জন্য এই তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায়।
  • রক্তক্ষরন/স্পটিংঃ গর্ভধারণ হয়ে থাকলে অনেক সময় মা এর রক্তক্ষরণ হয়ে থাকে।। এটিকে স্পটিং ও বলে। ইম্পলান্টেশন এর জন্য বা পিরিয়ডের ডেট আসার আগে হাল্কা কালচে রক্তপাত হতে পারে। এটিকে স্পটিং বলে। ভয় পাওয়ার কিছু নেই।।। ডঃ এর সাথে যোগাযোগ করুন।
  • ব্রেস্ট ভারী অনুভব করাঃ পিরিয়ড এর ডেট আসার আগে যদি ব্রেস্ট ভারী ও অস্বস্তিবোধ করেন তবে গর্ভধারণ এর প্রাথমিক পর্যায় ধরে নিতে পারেন।।।। গর্ভধারণের পর এস্ট্রোজেনের মাত্রা বেড়ে যায় তাই মহিলারা স্তনে ব্যথা ও তীব্র যন্ত্রণা অনুভব করেন তাহলে কিছুটা শিওর হতে পারেন আপনি গর্ভধারণ করেছেন।
  • মাংসপেশিতে ব্যথাঃ শরীরের মাংসপেশিতে ব্যথা বা লিগামেন্ট গুলোতে টান অনুভব করতে পারেন গর্ভাবস্থার প্রথম স্টেজে।। হরমোনগুলি রক্তের শর্করার মাত্রা কমিয়ে দেয় যার ফলে শরীরে ব্যথা অনুভব করে থাকেন মা।
  • খাবারের অরুচি বা গন্ধ ভাবঃ খাবারে অরুচি বা গন্ধ ভাব হয়ে হওয়া গর্ভধারণ এর প্রাথমিক লক্ষণ। যে খাবার স্বাভাবিকভাবে ভাল লাগে সেটা আপনার ভাল না লাগা বা অরুচি হলে ধরা যেতে পারে আপনি গর্ভবতী হতে পারেন। এটিও আপনার জন্য গর্ভধারণ এর লক্ষণ।
  • অতিরিক্ত পিপাসা বা পানির চাহিদাঃ গর্ভাবস্থার প্রথম সপ্তাহে আপনার অতিরিক্ত পানির পিপাসা পেতে পারে।। গলা শুকানো ভাব বা পানির অতিরিক্ত চাহিদা মানেই গর্ভাধারনের বেশ ভালোই সম্ভাবনা থাকে। গর্ভধারনের প্রথম সপ্তাহে এটি ভাল ভাবে পরিলক্ষিত হয়।
  • কোষ্ঠকাঠিন্যঃ প্রোজেস্টেরোন হরমোন পায়খানা শক্ত করে দেয় এবং হরমোনের তারতম্যতার কোষ্ঠকাঠিন্য হয়ে থাকে। যদি হঠাৎ করেই কোষ্ঠকাঠিন্যেতে ভোগেন, তাহলে আপনার গর্ভাবস্থার পরীক্ষা করা উচিত। এটিও আপনার জন্য গর্ভধারণ এর লক্ষণ।
  • ক্লান্তি ও ঘুমঃ গর্ভধারণ এর প্রথম সপ্তাহের লক্ষণ এর মাঝে একটি হল ক্লান্তি ভাব হওয়া। এই সময়ে মা এর ক্লান্ত, অবসাদগ্রস্থ লাগতে পারে। অতিরিক্ত ঘুম ঘুম ভাব হওয়াটা মোটেই অস্বাভাবিক নয়।
  • মুড সুইংঃ মুড সুইং গর্ভধারণ এর একদম প্রাথমিক লক্ষণ। হরমোনের ভারসাম্যহীনতা মস্তিষ্কে নিউরোট্রান্সমিটারগুলিকে প্রভাবিত করে, যার ফলে হুট করে রাগ থেকে শুরু করে হঠাৎ আবেগে ফেটে পড়া অস্বাভাবিক নয়।
  • মাথা ঘোরা বা ব্যথা ভাবঃ গর্ভধারণ এর প্রাথমিক লক্ষণ এর মাঝে মাথা ঘোরা বা মাথা ব্যথা ভাব হয়ে থাকে। রক্ত নালীগুলি স্ফীত হয়ে যায়, ফলে রক্তচাপ হ্রাস বৃদ্ধি পায় যার ফলে মাথা ঘোরা এবং ভারসাম্যহীনতার অনুভূতি হয়।
  • ক্রাম্পিংঃ ক্র্যাম্পিং বা পেট মোচড়ানো গর্ভধারণ এর প্রাথমিক লক্ষণ । সাধারণত ইমপ্ল্যানটেশনের (Implantation) জন্য এমনটা হয়ে থাকে।। মোটামুটি ধরে নিতে পারেন আপনি গর্ভধারণ করেছেন। এই লক্ষণ দেখলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
  • প্রস্রাবের আধিক্যঃ এই সময়ে কিডনির উপর চাপ পড়ে তাই আপনি ঘন ঘন প্রস্রাবের জন্যে অনুভব করবেন।
  • মেটাবোলিজম বা খাবার হজমে পরিবর্তনঃ এই সময়ে মায়ের খাবার হজমে বা খাবার এ গ্যাসের উদ্রেক হতে পারে।

উপরোক্ত লক্ষণগুলো থেকে কিছু না কিছু উপসর্গ দেখতে পেলে বলা যায় আপনার জন্য সুসংবাদ অপেক্ষা করছে।। আপনার জন্য এগুলো প্রাথমিক গর্ভধারণ এর লক্ষণ।

আরও পড়ুনঃ
গর্ভধারণে বিলম্বিত? কোন ভুল করছেন না তো?
গর্ভকালীন ডায়বেটিস এ মা এর করণীয়
গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে করনীয়
গর্ভাবতী মা এর অধিক গরম লাগার কারন ও করনীয়
গর্ভধারনের জন্য কিছু প্রয়োজনীয় পরামর্শ
গর্ভবতী ও দুগ্ধদানকারী মা এর রোজায় করনীয়

সম্পর্কিতপোস্ট

সম্পর্কিত পোস্ট

মন্তব্য করুন বা প্রশ্ন করুন ?

অনুসরণ করুন